পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন

পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন

বিএনএ, স্পোর্টস ডেস্ক, ১৯ জুন : ‌আনপ্রেডিক্টেবল শব্দটি পাকিস্তানের জন্য একবারে যুৎসই একটি শব্দ। কখন যে কি করে বসে পাকিস্তান বলা মুশকিল। র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের নিচে থেকে খেলা শুরু করে পাকিস্তান। শেষ করলো চ্যাম্পিয়ন হয়ে। অথচ তাদেরকে গোণাতেই রাখেননি বিশ্লেষকরা। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের মতো শক্তিশালী দলকে আকাশ থেকে নিচে নামিয়ে এনে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফির শিরোপা জিতে নিয়ে গোহারা হারালো ফাইনালে। যেনতেন নয় ১৮০ রানের বড় ব্যবধানে হার। ভাবাই যায় না পাকিস্তানের ৩৩৮ রানের জবাবে ১৫৮ রানে অলআউট ভারত। ভাগ্যিস পান্ডিয়ার ব্যাটে ইনিংসটি আর একটু লম্বা হয়েছে নয়তো আরো করুণ পরিণতি অপেক্ষা করছিলো তাদের জন্য। রানের ক্ষেত্রে এটি পাকিস্তানের সপ্তম বড় জয়। আর ভারতের বিপক্ষে এটি তাদের সবচেয়ে বড় জয়। টিম ইন্ডিয়ার বিপক্ষে পাকিস্তানের আগের বড় জয়টি ছিলো ১৫৯ রানের। লন্ডনের কেনিংটন ওভালে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৪ উইকেটে ৩৩৮ রান করে পাকিস্তান। দলের পক্ষে জামান ১১৪, আজহার আলী ৫৯ ও মোহাম্মদ হাফিজ অপরাজিত ৫৭ রান করেন। জবাবে ৩০ দশমিক ৩ ওভারে ১৫৮ রানেই গুটিয়ে যায় ভারত।ভারতের সামনে ফাইনাল ম্যাচ জয়ের টার্গেট ছিলো ৩৩৯ রান। সেই বড় টার্গেটের লক্ষ্যে খেলতে নেমে পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ আমিরের তোপে পড়ে ভারত। ইনিংসের তৃতীয় বলেই ভারতের ওপেনার রোহিত শর্মাকে শূন্য রানে বিদায় দেন আমির।
উইকেট নেয়ার ধারাবাহিকতা পরবর্তীতেও অব্যাহত রাখেন আমির। নিজের দ্বিতীয় ওভারের চতুর্থ আমির এবার শিকার করেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। আগের ডেলিভারিতে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে বেঁেচ যাওয়া কোহলি, এবার পয়েন্টে ক্যাচ দিয়ে নিজের উইকেটের বির্সজন দেন। ৯ বলে ৫ রান করেন তিনি।৬ রানে ২ উইকেট হারানোর পর প্রতিরোধ গড়া চেষ্টা করেন আরেক ওপেনার শিখল ধাওয়ান ও যুবরাজ সিং। ৪টি বাউন্ডারিতে খেলার নিয়ন্ত্রন নিজেদের দখলে নেবার চেষ্টা করেন ধাওয়ান। কিন্তু ধাওয়ানের পথেও কাটা হয়ে দাঁড়ান আমির। ২২ বলে ২১ রান তোলার পর আমিরের তৃতীয় শিকার হন ধাওয়ান।
৩৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় পড়ে যাওয়া ভারতকে তোলার দায়িত্ব নেন যুবরাজ ও উইকেটরক্ষক-সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। কিন্তু পাকিস্তানী বোলারদের বিপক্ষে তারাও ব্যর্থ হন। যুবরাজকে ২২ রানে লেগ স্পিনার শাহদাব খান এবং ধোনিকে ৪ রানে শিকার করেন পেসার হাসান আলী। এতে ৫ উইকেটে ৫৪ রানে পরিণত হয়ে ম্যাচে হার দেখে ফেলে ভারত।সেই হার আরও বেশি নিশ্চিত হয়ে যায়, স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কেদার যাদবও ব্যক্তিগত ৯ রানে থেমে গেলে। কারন দলীয় ৭২ রানে ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে প্যাভিলিয়নে ফিরেন কেদার। ফলে পাকিস্তানের জয় হয়ে দাড়ায় সময়ের ব্যাপার।

কিন্তু এরপরই পাকিস্তানের জয়কে দীর্ঘায়িত করেন হার্ডিক পান্ডে। পাকিস্তানের বোলারদের উপর চড়াও হন তিনি। ৬টি বিশাল ছক্কা ও ৪টি চার মেরে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে নিজের দ্বিতীয় হাফ-সেঞ্চুরির দেখা পান পান্ডে। তার টি-২০ মেজাজে ব্যাটিং-এ বিনোদনের রসদ পায় স্টেডিয়ামে উপস্থিত দর্শকরা।কিন্তু পান্ডের মারমুখী মেজাজে পানি ঢেলে দেন তারই সতীর্থ রবীন্দ্র জাজেদা। ২৭তম ওভারের তৃতীয় বলে রানের জন্য ডাক দিয়েও, দৌঁড় দেননি জাদেজা। কিন্তু ঠিকই দৌঁড় দিয়ে রান আউটে নিজেদের ইনিংসের সমাপ্তি টানেন পান্ডে। ফলে ৪৩ বলে ৭৬ রানেই থেমে যায় পান্ডের ইনিংস। জাদেজার সাথে সপ্তম উইকেটে ৫৭ বলে ৮০ রান করেন পান্ডে।দলীয় ১৫২ রানে পান্ডের বিদায়ের পর, বাকি ৩ উইকেট ৬ রানের ব্যবধানে হারিয়ে ১৫৮ রানেই গুটিয়ে যায় ভারত। পাকিস্তানের আমির ও হাসান ৩টি করে উইকেট নেন। ম্যাচের সেরা পাকিস্তানে ফখর জামান। টুর্নামেন্ট সেরা ও সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের পুরস্কার লাভ করেন একই দলের হাসান আলী।

সম্পাদনায় : আ.হা

Share