দিশেহারা বাংলাদেশি নারীর ১৫০বছর জেল!

দিশেহারা বাংলাদেশি নারীর ১৫০বছর জেল!

বিএনএ, বিশ্ব ডেস্ক, ১৪ নভেম্বর : মালয়েশিয়ায় পকেটমানি যোগাতে অপ্রাপ্তবয়সী দুই শিশুকে বেশ্যাবৃত্তি করতে বাধ্য করেছে এক বাংলাদেশি মা। দুই শিশুর বয়স ১০ ও ১৩ বছর। তাদেরকে পকেটমানি দেওয়া হতো ১ থেকে  ২০  রিংগিত। অনেক সময় তাদেরকে মায়ের তত্ত্বাবধানে হোটেলেও পাঠানো হতো। এর বিনিময়ে মা ৫০ রিংগিত আদায় করতেন।

৩৯ বছর বয়সী ডাইনি মা এখন তার অপরাধের দায়ে পুলিশের হাতে। বিচার শুরু হয়েছে। তার দীর্ঘ ১৫০ বছরের জেল নির্ধারণ করেছে আদালত।

একই সময়ে অপরাধ সংঘটিত হওয়ায় সাজা কমিয়ে ৭৫ বছরে নির্ধারিত হওয়ার কথা। জানালেন তার আইনজীবী। তার বিরুদ্ধে কন্যাদ্বয়কে পতিতাবৃত্তিতে নামানোর দায়ে ১০ টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

 

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, ১ অক্টোবর ও  ৪ থেকে ৭ অক্টোবরের মধ্যে ৫টি তারিখে  তিনি  কন্যাদের দুই ব্যক্তির কাছে পাঠিয়ে পতিতাবৃত্তি করিয়েছেন।

বেকার এ মহিলা মেয়েদের জন্য খদ্দেরের সন্ধানে থাকেন যারা কচি  মেয়েদের উপভোগ করতে চান। গত ২৫ অক্টোবর তাকে পুলিশ পাকড়াও করে।

তার ১৩ বছরের শিশু কন্যা গত ১৮ দিন ধরে স্কুলে যাচ্ছে না। স্কুল থেকে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, তাকে তার  মা এক বিদেশির কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। ধীরে ধীরে ব্যাপারটি প্রশাসনের কাছে খোলাসা হলে পুলিশ তদন্তে নেমে এর সত্যতা খুঁজে পায়।

মাকে আটক করে নিয়ে আসে পুলিশ। তার নামে মামলা দায়ের করে পুলিশ বাদি হয়ে। মহিলাটি ৫ দফা বিয়ে করলেও বিয়ে টিকে নি। তিনি প্রচণ্ড রকমের অর্থ কষ্টে থাকার কারণে এ কাজ করতে বাধ্য হয়েছেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। তিনি দুই মেয়েকে নিয়ে সিনাই থাকতেন।

বিচারকের সামনে দুই মেয়েকে নিশ্চুপ থাকতে দেখা গেছে। মা বলেছে, দুই কন্যা এখন সঠিক নির্দেশনা পাবে।

সম্পাদনায় : আ.হা

Share