চাকরি দাতা যখন প্রতারণার শিকার!

চাকরি দাতা যখন প্রতারণার শিকার!

বিএনএ, চট্টগ্রাম, ১৩ ফেব্রুয়ারি : চাকরি প্রার্থী প্রতারণার শিকার হওয়ার খবর অনেক সময়ই শোনা যায়। তবে চাকরিদাতা প্রতারণার শিকার হওয়া খুব একটা শোনা যায় না। তেমনই একটা ঘটনা ঘটল চট্টগ্রামে।

চাকরি দাতার সাথে প্রতারণার অভিযোগে রওশন আক্তার নামে এক প্রতারককে আটক করেছে পুলিশ।  ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নিত একটা গ্রুপ। সে গ্রুপে কাজ করত রওশন আক্তার। মঙ্গলবার ভোরে ডবলমুরিং থানাধীন বেপারীপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে রওশনকে আটক করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, একটি ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্মে রওশন আক্তার চাকরির আবেদন করে। পরে ওই ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্মের এমডির সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যুক্ত হন। তাদের মধ্যে কথা হতে থাকে। মোবাইলেও যোগাযোগ হয়। এক পর্যায়ে নিজের বাসা ও অভিভাবকদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়ার কথা বলে এমডিকে বাসায় আসার আমন্ত্রণ জানায় রওশন।

২৩ জানুয়ারি বেপারিপাড়াস্থ রওশন এক বাসায় নিয়ে আসেন ওই এমডিকে। প্রতিষ্ঠানের এমডি ঘরে প্রবেশ করা মাত্র তিন জন পুরুষ ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। এরপর তাকে মারধর করে তার মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নেয়। এরই মধ্যে একজন ওই এমডিকে রওশনের পাশে রেখে অশ্লীল ছবি তুলে। পরে ওই ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে কোন কিছু প্রকাশ করতে নিষেধ করা হয়। এসময় মুক্তিপণ হিসেবে তারা দুই লাখ টাকা দাবি করে। এক বন্ধুর মাধ্যমে এক লাখ টাকা দেয়া হয়। বাকী এক লাখ টাকা শীঘ্রই দেবার অঙ্গীকার করলে ওই এমডিকে মুক্তি দেয়া হয়।

এমডি তাদের হাত থেকে ছাড়া পেয়ে থানায় অভিযোগ করে। তার অভিযোগের ভিত্তিতে মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ এর এডিসি আবু বকর সিদ্দিক এর নেতৃত্বে একটি টিম বেপারীপাড়ার একটি বাসা থেকে রওশন আক্তারকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় জনৈক রনি (ছাগলনাইয়া ফেনী) ও অজ্ঞাত ০২ জনসহ মোট ০৪ জনকে বিবাদী করে এই ডবলমুরিং থানায় ০১টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বিএনএ/এইচ.এম/এসজিএন।

Share