লালদিয়ায় মেগা কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে

লালদিয়ায় মেগা কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে

বিএনএ, চট্টগ্রাম, ১৩ ফেব্রুয়ারি : চট্টগ্রাম  বন্দরের আমদানি-রফতানি কার্যক্রমে আরও গতিশীলতা আনতে এবং সক্ষমতা বাড়াতে লালদিয়ায় তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে  মেগা কন্টেনার টার্মিনাল। চারটি বার্থের দুটিতে কন্টেইনার জাহাজ এবং দুটিতে কার্গো ভ্যাসেল হ্যান্ডলিং হবে। যারা এটা নির্মাণ করবে তারা ২৫ বছর সেটা পরিচালনা করবে। ২৫ বছর পর কোম্পানিটি ইকুইপমেন্টসহ টার্মিনালটি বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে ছেড়ে দিবে। ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্নের লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে।

একটি কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ইতোমধ্যে প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা যাচাই কাজ  শেষ করেছে। এই প্রকল্পের পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বে রয়েছে বুয়েটের বিশেষজ্ঞ টিম।

বুয়েটের প্রফেসর ড. রাকিবুল হোসাইন জানান, তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে এ টার্মিনাল নির্মাণ করে আগামী ৩৬ মাসের মধ্যে এটি ব্যবহার শুরু করা সম্ভব হবে।

পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি)’র আওতায় এ মেগা কন্টেইনার টার্মিনাল নির্মিত হচ্ছে  বলে বন্দর সূত্রে জানা গেছে। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)’র সহায়তায় পাঁচ সদস্যের একটি কনসোর্টিয়াম এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

সূত্র আরো জানায়, বন্দরের কর্ণফুলী নদী সংলগ্ন ১৪ ও ১৫নং খালের মধ্যবর্তী জমির ওপর লালদিয়া টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রকল্পটির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ, টেন্ডার আহ্বান, আগ্রহীদের মাঝ থেকে শর্টলিস্ট তৈরিসহ নানা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। আগ্রহী কোম্পানিগুলোর মাঝ থেকে একটি প্রতিষ্ঠানকে ২৫ বছরের জন্য লালদিয়া এলাকার ৫২ একর জায়গা দেয়া হচ্ছে।

এদিকে প্রকল্প এলাকার ৫০০ পরিবারকে পুনর্বাসনের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।  নগরীর চান্দগাঁও থানাধীন হামিদচরে দুইটি বেড রুম, ড্রয়িং ডাইনিং, কিচেন এবং বাথরুম সহ পাঁচশটি ঘর বানানো হবে। প্রতিটি পরিবারকে একটি করে ঘর দেয়া হবে।

২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটে পিপিপির আওতায় লালদিয়া টার্মিনাল নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদন করে সরকার। গত জুনে পিপিপিতে টার্মিনালটি নির্মাণের জন্য রিকোয়েস্ট ফর কোয়ালিফিকেশন (আরএফকিউ) বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয় । এ প্রকল্পে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে দুবাই এর ডিপি ওয়ার্ল্ড, ভারতীয় আদানি পোর্টস এন্ড স্পেশাল ইকোনোমিক জোন লিমিটেড, ফ্রান্সের ট্রান্সপোর্ট কোম্পানি লিমিটেড, চীনের চায়না হারবার এবং সিঙ্গাপুরের গ্লোবাল পোর্ট সার্ভিসেস। এ প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কোন একটি সাথে চুক্তি করবে বন্দর। চুক্তি সম্পন্ন হলে চলতি বছর থেকে কাজ শুরু করা হতে পারে।

 

বিএনএ/এইচ.এম/এসজিএন।

Share