কাঠমান্ডুতে নিহত ৪৯ জনের মধ্যে ২৬ বাংলাদেশি

কাঠমান্ডুতে নিহত ৪৯ জনের মধ্যে ২৬ বাংলাদেশি

বিএনএ,ঢাকা, ১৩ মার্চ ২০১৮ : নেপালের কাঠমান্ডুতে ইউএস বাংলার বিমান দুর্ঘটনা নিহত ৪৯ জনের মধ্যে ২৫ জন বাংলাদেশি। তাদের মধ্যে দুই কো-পাইলট ও একজন ক্রু রয়েছেন। দুর্ঘটনায় আহত ১১ বাংলাদেশীকে কাঠমান্ডুর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ তথ্য জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

বেঁচে যাওয়া বাংলাদেশিরা হলেন, ক্রু কে এইচ এম শাফি, যাত্রী শাহরিন আহমেদ, আলামুন্নাহার এ্যানি, শাহিন বেপারী, রেজয়ানুল হক, মেহেদী হাসান, এমরানা কবির হাসি, কবির হোসাইন, শেখ রুবায়েত রাশেদ, সৈয়দা কামরুন্নাহার স্বর্ণা। বিমানটিতে চারজন ক্রুসহ ৭১ জন আরোহী ছিলেন। উদ্ধার করা হয়েছে বিমানের ব্ল্যাকবক্স।

ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পাইলট ও বিমানের কোন ত্রুটি ছিলনা। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের ভুল নির্দেশনার কারণে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বিমানটি। বিমান দুর্ঘটনায় হতাহতদের স্বজনদের নিয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে একটি বিশেষ ফ্লাইট কাঠমুন্ডু গেছে। তাদের সঙ্গে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ও সরকারের প্রতিনিধিরাও গেছেন।

ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের বিধ্বস্ত হওয়া বিমানে বাংলাদেশি যাত্রী ছিলেন ৩৬ জন। নেপালের ৩৩ শিক্ষার্থী ছাড়াও চীন ও মালদ্বীপের দুই নাগরিকও ছিলেন। যাত্রীদের মধ্যে দুটি শিশু ছিল।

নেপালের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাসচিব সঞ্জিব গৌতম বলেন, রানওয়েতে অবতরণের সময় বিমানটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এর পর সেটি বিমানবন্দরের কাছে একটি ফুটবল মাঠে বিধ্বস্ত হয়। এরপরই দুর্ঘটনাকবলিত বিমানের যাত্রীদের উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে উদ্ধারকর্মীরা। তাঁদের সঙ্গে উদ্ধারকাজে অংশ নেয় নেপাল সেনাবাহিনী ও বিমানবন্দরের সদস্যরা।

বিএনএ/আরকেসি/এমএমএইচ/আ.হা

Share