বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

আ. লীগের মনোনয়ন : চট্টগ্রামে নবীন-প্রবীণের ভিড়


।।মুহাম্মদ মহরম হোসাইন।।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে অংশ নিতে চট্টগ্রামের ১৬টি সংসদীয় আসনে প্রবীণ রাজনীতিবিদদের পাশাপাশি নবীনদের অংশগ্রহণ লক্ষণীয়। চট্টগ্রামে ২২৫ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে অন্তত ২৭ জন নবীন ও তরুণ রাজনৈতিক নেতা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে কেউ ছাত্র রাজনীতি থেকে এসেছেন, কেউ শিল্পপতি আবার কেউ এমপি-মন্ত্রীর সন্তান।

এবার একাধিক আসনে প্রবীণ হেভিওয়েট প্রার্থীদের পাশাপাশি তরুণরা প্রার্থী হওয়াতে শহরজুড়ে চমক সৃষ্টি হয়েছে। মাঠে ময়দানে চলছে তরুণ প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা। তবে তরুণরা প্রার্থী হওয়ায় আওয়ামীলীগের অধিকাংশ প্রবীণ নেতারা খুশি। কারণ হিসেবে বলছেন তাদের তো শিখতে হবে। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এদেরকে চিনতে হবে।  মনোনয়নপত্র সংগ্রহের মাধ্যমে তরুণ নেতৃত্বকে কেন্দ্র চিনতে পারছে।  এ থেকে তারা অনেক কিছ শিখবে। তবে কেউ কেউ প্রকাশ্যে বেজার না হলেও নবীনদের প্রতি গোপনে গোপনে বেজায় চটেছেন। তবে সকল মনোনয়ন প্রত্যাশীদের একটাই কথা দল যাকে মানোনয়ন দেবে তার পক্ষে মাঠে থাকবেন তারা।

দলের একাধিক কেন্দ্রীয় নেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, এবার আওয়ামী লীগে রেকর্ড সংখ্যক তরুণ ও নবীনরা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহের ব্যাপারে দল খুশি। দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সংস্থার প্রতিবেদন, জরিপ এবং অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করে নৌকার প্রার্থী মনোনীত করবেন। এদের মধ্যে যারা দীর্ঘদিন মাঠে-ময়দানে ছিলেন এমন অনেক ক্লিন ইমেজের তরুণ ও নবীন রাজনীতিকরা  মনোনয়ন পেতে পারেন বলে তারা জানান।

এদিকে চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলার কয়েকজন আওয়ামীলীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সাথে নবীন প্রার্থীদের মনোনয়ন প্রত্যাশার ব্যাপারে জানতে চাইলে তারা নিউজ বিএনএ ডটকমকে বলেন, সকল রাজনীতিবিদদের ইচ্ছা জনসেবা করা। আর রাজনীতি করলে সবাই জনসেবা করতে চান। এ জন্য প্লাটফরম দরকার। সেটা হল নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি হওয়া। প্রত্যেক রাজনৈতিক নেতার জনপ্রতিনিধি হওয়ার ইচ্ছা থাকতে পারে তা ভিন্ন চোখে দেখার সুযোগ নেই। প্রার্থী হওয়া দোষের কিছু না। এতে করে দলে গণতন্ত্রের চর্চা বাড়ে।

তারা আরো বলেন, আমরা প্রবীণরা আর কতদিন। প্রবীণের জায়গায় একদিন নবীনরা আসবেন। রাজনীতির হাল ধরবে। জনগণকে নিয়ে মাঠে ময়দানে কাজ করবে। তাই আমাদের সময় সুযোগ বুঝে সে স্থান ছেড়ে দেওয়া উচিত এবং তাদের শিখতে দেওয়া উচিত।

এ ব্যাপারে আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী নগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি তরুণ নেতা এম আর আজিম নিউজ বিএনএ ডটকমকে জানান, আমি দলের মনোনয়ন ফরম নিয়েছি। দল যদি আমাকে যোগ্য মনে করে তাহলে নমিনেশন দেবে। তবে দল যাকে মনোনয়ন দেবে একজন আওয়ামীলীগের কর্মী হিসেবে তার পক্ষে কাজ করব।

আ’লীগের অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী কাজী রাজিশ ইমরান জানান, আমার পিতাও বঙ্গবন্ধুর একজন মাঠের সৈনিক ছিলেন। সবর্দা দলের জন্য নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন। আমি আমার বাবার মত জননেত্রী শেখ হাসিনর একজন কর্মী হিসেবে থাকতে চাই। দলের নমিনেশন পান বা না পান  নৌকার বিজয়ের জন্য কাজ করবেন বলে প্রত্যয় বক্ত করেন।

প্রবীণদের পাশাপাশি চট্টগ্রামে যে সকল সংসদীয় আসনে তরুন রাজনৈতিক নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশী তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন:

চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী)  আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছে ২৬ জন।এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থীরা হলেন, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত  এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত কাজী ইনামুল হক দানুর পুত্র মহানগর যুবলীগের সদস্য কাজী রাজিশ ইমরান সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত আব্দুল মান্নানের পুত্র মহানগর আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী  সদস্য আব্দুল লতিফ টিপু ও তার ভাই মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দিদারুল আলম, সাবেক মন্ত্রী জহুর আহমদের পুত্র জসিম উদ্দিন চৌধুরী,কোতোয়ালী থানা আওয়ামীলীগ নেতা হাসান মনসুর প্রমুখ।

এই আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামীলীগের শরীক জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী জিয়াউদ্দিন বাবলু। তিনি আবারও এই আসনে জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-৮ (চান্দগাঁও-বোয়ালখালী) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ১৭ জন।  এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থী হলেন, চট্টগ্রাম মহানর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি সাবেক মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি’র সন্তান তরুন ব্যবসায়ী মজিবুর রহমান।

এ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামীলীগের শরীক জাসদের একাংশের সভাপতি মাইনুদ্দিন খান বাদল। তিনি আবারও এই আসনে জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ১৫ জন।এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থীরা হলেন মহানগর যুবলীগের আহ্ববায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু, যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ,প্রয়াত আ.লীগ নেতা  এম এ আজিজের পুত্র সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার।

বর্তমান এই সংসদীয় আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন সাবেক মন্ত্রী, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ডা. আফসারুল আমিন। তিনি আবারও এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। এই আসনে আরও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন এম মনজুর আলম।

চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন ১৭ জন। এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থী হলেন চট্টগ্রাম মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব হক এটলী।

বর্তমান এই সংসদীয় আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন সাবেক চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স ইণ্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আব্দুল লতিফ। তিনি আবারও এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছে ২৫ জন।এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থীরা হলেন  মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও আওয়ামীলীগের সাবেক সহ সম্পাদক ছাত্রনেতা এম আর আজিম, আওয়ামীলীগের পেশাজীবি নেতা ডা. ফয়সাল কামাল  ও  মালেশিয়া আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রয়াত ড. মাহমুদ হাসানের পুত্র জেলা পরিষদ সদস্য আকতার পারভেজ।

এই আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামীলীগের শরীক তরিকত ফেডারেশনের চেয়াম্যান শাহসূফি মাওলানা নজিবুর বশর মাইজভাণ্ডারী। তিনি আবারও এই আসনে জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছে ১১ জন। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি সালাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী।

এই আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামীলীগের শরীক জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ চৌধুরী। তিনি আবারও এই আসনে জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছে ০৪ জন। এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থী হলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহফুজুল হায়দার রোটন আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

বর্তমান এই সংসদীয় আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী। তিনি আবারও এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম নিয়েছে ১৩ জন।এদের মধ্যে তরুণ প্রার্থীরা হলেন দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি ও সাংসদ প্রয়াত সুলতানুল করিবের পুত্র দক্ষিণ জেলা  স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মো. গালিব ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী সুমন।

বর্তমান এই সংসদীয় আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন আওয়ামীগের মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি আবারও এই আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

আওয়মীলীগের দলীয় সূত্রে জানা যায়, দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে আজ বুধবার (১৪ নভেম্বর) মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সঙ্গে কথাও বলবেন।

সম্পাদনায় : আবির হাসান

 


newssbna-ad
newssbna-ad
ওয়েব সাইটে প্রকাশিত কোন প্রবন্ধ, নিবন্ধ ও মতামত এর জন্য সম্পাদক কোন ভাবে দায়ী নন