বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

১৪ শতাংশ নারী পোশাক শ্রমিক যৌন হয়রানির শিকার

চট্টগ্রাম ও নারায়নগঞ্জে ১৪ শতাংশ নারী পোশাক শ্রমিক যৌন হয়রানির মুখোমুখি!

বিএনএ, চট্টগ্রাম:  সাম্প্রতিক এক জরীপে উঠে এসেছে যে, প্রায় ৮৫ শতাংশ গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মক্ষেত্রে মৌখিক হয়রানি, ৭১ শতাংশ মানসিক হয়রানি, ২০ শতাংশ শারীরিক ও ১৩ শতাংশ যৌন হয়রানির শিকার হন । অন্য এক জরীপ প্রতিবেদনেও একই চিত্র উঠে এসেছে, যেখানে চট্টগ্রাম ও নারায়নগঞ্জের প্রায় ১৪ শতাংশ নারী গার্মেন্টস শ্রমিক বলেন যে, তারা কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির মুখোমুখি হয়েছেন ।

ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের অর্থায়নে আর্ন্তজাতিক সংস্থা একশন এইড বাংলাদেশের সহযোগিতায়  চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশান এলাকায় বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা  সংশপ্তক ও অগ্রযাত্রা মাধ্যমে বাস্তবায়িত  “সাসটেইনেবল এন্ড রেসপনসিবল এ্যকশনস্ ফর মেকিং ইন্ডাস্ট্রিজ কেয়ার (শ্রমিক) প্রকল্পের আয়োজনে ৪ ডিসেম্বর,২০১৮ চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় এ সব তথ্য প্রকাশ করা হয়।

“এখন নয়তো কখন : নারী বান্ধব নিরাপদ কর্মক্ষেত্র ”এই স্লোগানকে সামনে নিয়ে নারী বান্ধব নিরাপদ কর্মক্ষেত্র বাস্তবায়নে আমাদের করনীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন অগ্রযাত্রার সভাপতি নীলিমা আকতার চৌধুরী।

অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন এ্যাকশন এইড বাংলাদেশের পরিচালক আসগর আলী সাব্রী। সভার শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংশপ্তকের প্রধান নির্বাহী লিটন চৌধুরী।

সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সরকারী কল-কারখানা  ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের সহকারী মহা পরিদর্শক(সাধারণ) জনাব শিপন কুমার দাস ,ক্লিফটন গ্রুপের প্রধান নির্বাহী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম.ডি,এম মহিউদ্দিন চৌধুরী,ওয়েল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (গার্মেন্টস ডিভিশন) সৈয়দ নজরুল ইসলাম,বিএসআরএম এর হেড অফ সি এস আর রুহি আহমেদ,শার্ট মেকার্সের পরিচালক গোলাম নেওয়াজ, সমাজ সেবা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ ওয়াহিদুল আলম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শাহীন কলম্বিয়া স্পোর্টস ওয়্যারস কম্পানির সিনিয়র সিএসআর  স্পেশালিস্ট মোঃ ইসমাইল, সানম্যান গ্রুপের জি এম কমপ্লায়েন্স সায়েম আহমেদ, বিশিষ্ঠ শ্রম আইনজীবি এডভোকেট মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন, এ.কে.খান ফাইন্ডেশনের সমন্বয়কারী আবুল বাশার,ক্লিফটন ডিলাক্স ফ্যাশন লিঃ এর জি.এম মোহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক, ক্লিফটন কঠন মিলস লিমিটেড এর জি.এম মাহাম্মদ নুরনবী  বিলস চ্টগ্রাম এর চেয়ারম্যান এস.এম নাজিম উদ্দিন   ও বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি বিশিষ্ঠ শ্রমিক নেতা  তপন দত্ত, ন্যাশনাল গার্মেন্টস ওয়ার্কাস ফেডারেশন সভাপতি মোহাম্মদ ফয়েজ, গনতান্ত্রিক গামেৃন্টস ওয়াকার্স ফেডারেশন সভাপতি আলমগীর রণী, বাংলাদেশ জাতীয় শ্রমিক সংহতি ফেডারেশান সভাপতি মোরশেদ আলম,সংশপ্তক ইয়াং লিডারস ফোরাম সভাপতি চুমকি মহাজন,সহসভাপতি মোঃ জুয়েল,অগ্রযাত্রা ইয়াং লিডারস ফোরাম সভাপতি মিনা আকতার ও সুমি আকতার , ধন্যবাদ  বক্তব্য রাখেন অগ্রযাত্রার নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন ।

মতবিনিময় সভায় মূল প্রতিপাদ্য বিষয় উপস্থাপন করেন একশন এইড বাংলাদেশের শ্রমিক প্রকল্পের ম্যানেজার ড. আফরোজা আক্তার। তিনি তথ্য প্রকাশ করে আরো বলেন, জরীপে আরও দেখা গেছে যে, ঢাকায় কর্মরত প্রায় ৭১ শতাংশ গার্মেন্টস শ্রমিক আইন অনুসারে ৪ মাস মাতৃত্বকালীন ছুটি পাননা। এ চিত্র শুধু গার্মেন্টস খাতের নয়, অন্যান্য খাতেও নারী শ্রমিকদের অবদান থাকলেও তারা তাদের ন্যূনতম আইনগত অধিকারসহ মানবাধিকার থেকে বিভিন্নভাবে বঞ্চিত হচ্ছে। যেমন; সময়মতো মজুরি পাওয়া, কাজের সময়কাল,  ছুটি, ক্ষতিপূরণ, মাতৃত্বকালীন ছুটি ইত্যাদি অধিকার। নারীর জন্য যদি নারীবান্ধব কর্মক্ষেত্র নিশ্চিত করা সম্ভব হয় তবে নারীর আংশগ্রহণ আরো বৃদ্ধি পাবে। নারীবান্ধব পরিবেশ হওয়ার কারণে নারীর কর্মক্ষমতাও বেড়ে যাবে বহুগুণ, ফলে রাষ্ট্রের অর্থনীতির চাকা আরো সচল হবে । যা নারী শ্রমিকদের সমতাপূর্ণ নিরাপদ কর্মপরিবেশ সৃষ্টির পাশাপাশি তাঁদের আত্মমর্যাদা বৃদ্ধি করবে।

অতিথিদের বক্তব্যে ওয়েল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (গার্মেন্টস ডিভিশন) সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন; আমরা নারীদের ক্ষমতায়ন এবং নারী বান্ধব কর্মক্ষেত্র বাস্তবায়নে অঙ্গীকার বদ্ধ তবে সে ক্ষেত্রটি বাস্তবায়নে নারীদেরকেই আগে এগিয়ে আসতে হবে । কেননা তারা যদি তাদের বিষয় গুলি যথাযথা শিক্ষার মাধ্যমে উপস্থাপন করে তাহলে তারা তাদের আপন ক্ষেত্র তৈরি করতে পারবে ।

ক্লিফটন গ্রুপের প্রধান নির্বাহী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম.ডি,এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন ; আমরা নারী ও শ্রমিক বান্ধব গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী বাস্তবায়ন করে আসছি । আমরাই চট্টগ্রামে সর্বপ্রথম অংশগ্রহনকারী কমিটি নির্বাচনের মাধ্যমে পরিচালনা করে আসছি এবং নারীদের সর্বোত্তম সুবিধাদি এমনকি নারীদের সন্তানদের দুগ্ধদানকারী মা এবং গর্ভকালীন নারী শ্রমিকদের বিশেষ সুবিধা প্রদান করে আসছি । আর আমাদেও সব কয়টি কমিটি নারীদেরদেও বিশাল নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠিত রয়েছে । নারীদের নারী বান্ধব নিরাপদ কর্মক্ষেত্র বাস্তবায়নে সবারই অংশগ্রহন এবং সহযোগিতা দরকার ।

সরকারী কল-কারখানা  ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের সহকারী মহা পরিদর্শক(সাধারণ) জনাব শিপন কুমার দাস বলেন ; গামেন্টস ফ্যাক্টরী গুলো যদি তাদেও জন্য নির্ধারিত যে কমিঠি গুলো আছে বিশেষতঃ অংশগ্রহনকারী কমিটি,জেন্ডার কমিটি,সেইফটি কমিটি এবং ট্রেড ইউনিয়নের বিষয়গুলো যদি সক্রিয় ভাবে বাস্তবায়ন করে এবং যথাযথ মনিটরিং সিস্টেম চালু করে তাহলে নারী বান্ধব নিরাপদ কর্মক্ষেত্র সম্ভব । এবং আমরা বাংলাদেশ এর নাগরিকরা বিশ্বের মধ্যে উজ্জল দৃষ্ঠান্ত আমাদের সকল কার্যক্রমে অগ্রনী ভূমিকা পালনের জন্য । মুক্ত আলোচনা পর্বের  মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয় ।

এছাড়াও একশন এইড বাংলাদেশের শ্রমিক প্রকল্পের প্রতিনিধি আহছানুজ্জাামান শাহিন,এ.কে.এম. রাশেদ , সংশপ্তকের লীড ট্রেইনার জয়নাব বেগম মিতু ,শ্রম অধিদপ্তর প্রতিনিধি,সরকারি কর্মকর্তা, বিজিএমইএ প্রতিনিধি, গার্মেন্টসের মালিক ও সিনিয়র ব্যাবস্থাপনা কর্মকর্তা, সাংবাদিক, বেসরকারী সংস্থার  প্রতিনিধি ও শ্রমিক প্রকল্পের কর্মকর্তাবৃন্দ,শ্রমিক প্রতিনিধি বৃন্দ সেখানে উপস্থিত ছিলেন । পুরো মতবিনিময় সভাটি সমন্বয় করেন সংশপ্তকের প্রকল্প সমন্বয়কারী মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান ও অগ্রযাত্রার প্রকল্প সমন্বয়কারী মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম ।

এসজিএন


newssbna-ad
newssbna-ad
ওয়েব সাইটে প্রকাশিত কোন প্রবন্ধ, নিবন্ধ ও মতামত এর জন্য সম্পাদক কোন ভাবে দায়ী নন