বুধবার, ২৭ মার্চ ২০১৯, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

আদালতের কাঠগড়ায় খুনি ব্রেনটন


বিএনএ, বিশ্ব ডেস্ক ।। ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে বন্দুকধারীর হামলায় ৪৯ জন মুসলমানকে নামাজরত অবস্থায়   খুন করার অপরাধে অভিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক ব্রেন্টনের বিরুদ্ধে মার্ডার চার্জ গঠন করেছে নিউজিল্যান্ড আদালত।

আদালতে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায়ও বর্ণবাদের প্রতীক দেখাচ্ছিলেন ক্রাইস্টচার্চের এই হামলাকারী। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের এক ছবিতে, হাতকড়ার পরা অবস্থায় ব্রেন্টনকে আঙুল দিয়ে ‘শ্বেতাঙ্গ আধিপত্য’ বর্ণবাদী প্রতীক প্রদর্শন করতে দেখা গেছে।

এই প্রতীক থেকে শেতাঙ্গরা শ্রেষ্ঠ এমনটাই প্রকাশ করে।এক্ষেত্রে বৃদ্ধাঙ্গুলি ও তর্জনি আঙুল বৃত্তাকারে একসঙ্গে যুক্ত করলে তা ‘পি’ আকৃতির হয়। এটা দিয়ে ‘পাওয়ার’ বা শক্তি বোঝানো হয়। আর বাকি তিন আঙুল ‘ডব্লিউ’ আকৃতির হয়।

এর মাধ্যমে হোয়াইট বা সাদা বোঝানো হয়। অর্থাৎ হাতের মাধ্যমে হোয়াইট সুপ্রিমেসি বা ‘শ্বেতাঙ্গ আধিপত্য’ প্রকাশ করা হয়েছে। আদালতের সামনে দাঁড়িয়েও বিন্দু মাত্র অনুশোচনা না দেখিয়ে বরং বর্ণবাদী মনোভাবকেই তুলে ধরেছেন ব্রেন্টন।

২৮ বছর বয়সী ওই হামলাকারীকে সাদা রংয়ের কয়েদীদের পোশাকে এবং হ্যান্ডকাফ পরা অবস্থায় আদালতে হাজির করা হয়। তার বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ আনা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।হাতকড়া পরা অবস্থায় খালি পায়ে থাকা ব্রেন্টন আদালতে নীরব ছিলেন। তাকে কোনও কথাই বলতে দেখা যায়নি।

তবে শুনানির সময় তাকে দেখে মনে হচ্ছিল, তার মধ্যে কোনও অনুশোচনার লেশমাত্র নেই। এমনকি শুনানির সময় যখন সাংবাদিকরা তার ছবি তুলছিলেন তখন নির্বিকারভাবে তাদের দিকে তাকিয়ে হেসে যাচ্ছিলেন ব্রেন্টন।

আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়ানো ব্রেনটনের গায়ে  ছিল হাজতিদের সাদা সার্ট।হাতকড়া পরিহিত ছিল হাতে। তার বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ গঠন করা হবে।নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আর্ডার্ন বলেন, বেন্টনের কাছে ৫টি বন্দুক ও একটি ফায়ার আর্মস লাইসেন্স রয়েছে।

আমাদের আগ্নেয়াস্ত্র আইন পরিবর্তন করতে হবে। হাজতে আরো দু’জন রয়েছে। তাদের কারো বিরুদ্ধে কোন ক্রিমিনাল রেকর্ড নথিভুক্ত নেই।৫ এপ্রিল তাকে আবার আদালতে তোলা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বন্দুকধারী তার ব্যবহৃত অস্ত্র সর্বোচ্চ ব্যবহারের জন্য কিছুটা পরিবর্তন করেছে বলে মনে হচ্ছে।তার গাড়ি ভর্তি অস্ত্র। তার লক্ষ্য ছিল হত্যাকাণ্ড চালিয়ে যাওয়া।হতাহতদের পরিবারের সাথে আত্মীয়স্বজনদের যোগাযোগ করার অনুরোধ জানিয়ে তাদের সান্ত্বনা প্রদান এ মুহূর্তে বড় প্রয়োজন বলে তিনি মনে করছেন।

সম্পাদনায় : আবির হাসান।


ট্যাগ:

newssbna-ad
newssbna-ad
ওয়েব সাইটে প্রকাশিত কোন প্রবন্ধ, নিবন্ধ ও মতামত এর জন্য সম্পাদক কোন ভাবে দায়ী নন