সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন

সদ্য সংবাদ:

ফলোআপ: আ.লীগ নেতা সোহেল কী টার্গেট খুন!

ফলোআপ: আ.লীগ নেতা সোহেল কী টার্গেট খুন!

।।মুহাম্মদ মহরম হোসাইন।।

বিএনএ,চট্টগ্রাম: কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাবেক নেতা মো. মহিউদ্দিন সোহেল (৪০)কে নৃশংসভাবে হত্যার ৭২ ঘন্টা পার হলেও এখনো ধরা পড়েনি একজনের বেশি আসামী।হত্যা মামলার অন্যতম আসামী জাতীয় পার্টির নেতা ওসমান খানকে বুধবার সন্ধ্যায় তার বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে পাহাড়তলী থানা পুলিশ। নিহত আওয়ামী লীগ নেতা মো. মহিউদ্দিন সোহেল ছিলেন চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। এরপর হন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় আ.লীগের উপ কমিটির সহ-সম্পাদক।

সিএমপির সহকারী কমিশনার (ডবলমুরিং জোন) আশিকুর রহমান বলেন, বিষয়টি খুব স্পর্শকাতর। এটি ‘পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড’ নাকি ‘গণপিটুনি’ এই বিষয়ে তদন্ত চলছে এবং সেইসাথে আসামিদের গ্রেফতারেও অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত মঙ্গলবার(৮ জানুয়ারি) রাতে মহিউদ্দিন সোহেলের ছোট ভাই মো. শাকিরুল ইসলাম শিশির ডবলমুরিং থানায় কাউন্সিলর সাবের আহমেদকে প্রধান আসামি করে ২৭ জনকে এজাহারভুক্ত ও অজ্ঞাত ১০০-১৫০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এদিকে মহিউদ্দিন সোহেল খুনের ঘটনায় এলাকার প্রতিটি সাধারণ মানুষের মনে দেখা দিয়েছে নানা প্রশ্ন।চাঁদাবাজির অভিযোগে যদি তাকে গণপিটুনি দেয়া হয় তাহলে তার শরিরে লাঠির আঘাতের চিহ্ন থাকার কথা কিন্তু সেখানে দা দিয়ে কোপানো অথবা ছুরিকাঘাতের ক্ষতচিহ্ন কেন? এটি চাঁদাবাজির দোহায় দিয়ে গনপিটুনির নামে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড নয়তো? এমন প্রশ্ন নিহত সোহেলের পরিবারেও।

পুলিশের সুরতহাল প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে সোহেলের শরীরে ২৪ থেকে ২৬টি গভীর কাটা ক্ষতচিহ্নের বর্ণনা। এসব ক্ষতের কারণে দ্রুত রক্তক্ষরণে মারা যান সোহেল।

অন্যদিকে বুধবার হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থলে সরেজমিনে গেলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী নিউজ বিএনএ ডটকম জানান, গত (৭ জানুয়ারি) সোমবার সকাল ১০টার দিকে পাহাড়তলী রেলওয়ে পাওয়ার হাউজ কলোনির সামনে হঠাৎ একদল লোক এসে সোহেলের অফিস ঘরে অগ্নিসংযোগ করে। ঘটনার আকস্মিকতায় ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে পাশের একটি রুমে সোহেল আশ্রয় নেবার চেষ্ঠা করে। হামলাকারীরা সেই ঘরের দরজা ভেঙে সোহেলকে টেনে-হিঁচড়ে বের করে এলোপাতাড়ি কোপায়। মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে মারা যান তিনি।

মহিউদ্দিন সোহেলকে পরিকল্পিত হত্যা করা হয়েছে এমন দাবি করে কেঁদে দেন সোহেলের ছোট ভাই শিশির। তিনি বলেন, আমার ভাইকে যদি গণপিটুনি দেয় তাহলে তার শরীরে এতগুলো ছুরির আঘাত কেন?  প্রশ্ন যোগ করেন তিনি।

সোহেলের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় স্থানীয় সরাইপাড়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাবের আহমদ সওদাগর ও জাতীয় পার্টির নেতা ওসমান খান নামে দুইজন জড়িত বলে দাবি করেন শিশির।তবে নিহতের ভাইয়ের অভিযোগ মিথ্যা বলে জানান কাউন্সিলর সাবের আহমদ সওদাগর।

এই ব্যাপারে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাবেক সহ-সম্পাদক হাবিবুর রহমান তারেক নিউজ বিএনএ ডটকমকে জানান, আর কত ছাত্রলীগ নেতাকে মিথা অপবাদে হত্যা করা হবে। এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড হতে পারে উল্লেখ করে এই ছাত্রনেতা জানান, নিহত সোহেলের বিরুদ্ধে কোন থানায় কোন অভিযোগ নেই, তাহলে সে ব্যক্তি কিভাবে চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী হয়? যদি সে এলাকায় চাঁদাবাজি করে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে নিদিষ্ট থানায় কোন অভিযোগ করা হয়নি কেন? একজন ছাত্রলীগ নেতা কি এত নিচে নেমে যাবে ৫০ টাকা আর ১০০ টাকার জন্য চাঁদাবাজ হবে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট কথা।তিনি বলেন, আমরা এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের শাস্তি চাই।

সাবেক দক্ষিণজেলা ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমান সেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিন দাশ রাহুল নিউজ বিএনএ ডটকমকে বলেন, মহিউদ্দিন সোহেল এর হত্যাকাণ্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের খুঁজে বের করে আইনের আত্ততায় আনতে হবে। নইলে খুনিরা প্রশ্রয় পেয়ে যাবে।

এই ব্যাপারে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় আরেক সাবেক সহ-সম্পাদক ফয়সাল বাপ্পি নিউজ বিএনএ ডটকমকে জানান, কে কার গ্রুপ করে সেটা বড় কথা নয়। আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়া সৈনিক। আমরা এই  হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই।তিনি আরো বলেন, এইভাবে ছাত্রলীগের আর কত নেতাকর্মী প্রাণ হারাবে। সমাজে লুকিয়ে থাকা ষড়যন্ত্রকারীরা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হত্যার মাধ্যেমে কৌশলে জামায়াত শিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে এবং আওয়ামী লীগ সরকারকে হেয়প্রতিপন্ন ও বেকায়দায় ফেলতে কাজ করছে।

নিহত মহিউদ্দিন সোহেলের বাবা আবদুল বারেক রেলওয়ের একজন সাবেক উপ-সহকারী প্রকৌশলী। গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর জেলায়। সোহেল বিবাহিত ও দুই পুত্র সন্তানের জনক।মো. মহিউদ্দিন সোহেল চট্টগ্রামের রাজনীতিতে একসময় চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী ছিলেন।

এসজিএন/আরকেসি


নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

newssbna-ad

The Village Restaurant And Party Centre Finlay house ,Ground floor (oposite CGO building 11) Agrabad C/A Or Call 0176588888

ওয়েব সাইটে প্রকাশিত কোন প্রবন্ধ, নিবন্ধ ও মতামত এর জন্য সম্পাদক কোন ভাবে দায়ী নন