সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন

সদ্য সংবাদ:

‘চোখের সামনেই একে একে ডুবে যাচ্ছিল ওরা’

ভূমধ্যসাগরের নৌকাডুবির ঘটনায় জীবিত উদ্ধার হওয়া ১৪ বাংলাদেশির একজন বিলাল আহমেদ।

ভূমধ্যসাগরে অভিবাসীবোঝাই নৌকাডুবির ঘটনায় যাদের উদ্ধার করা হয়েছে তারা সবাই এখন তিউনিসিয়ার উপকূলীয় শহর জারজিসে রেড ক্রিসেন্টের একটি আশ্রয় কেন্দ্রে আছেন। ১৬ জনকে সেখান থেকে জীবিত উদ্ধার করে জেলেরা।কিন্তু আরও প্রায় ৬০ জন পানিতে ডুবে মারা যায়। এদের বেশিরভাগই ছিল বাংলাদেশী।

বেঁচে যাওয়াদের মধ্যে ৩০ বছর বয়সী আহমেদ বিলালের বাড়ি বাংলাদেশের সিলেট জেলায়। সেখান থেকে উন্নত জীবনের আশায় দালালদের মাধ্যমে তিনি ইউরোপের পথে পাড়ি জমিয়েছিলেন ।পারিবারিক জমি বিক্রি করে দালালের হাতে  তুলে দেন সাত হাজার মার্কিন ডলারের সমপরিমান অর্থ। এই দালালকে তিনি চেনেন ‘গুডলাক’ ছদ্মনামে।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে  আহমেদ বিলাল জানিয়েছেন কীভাবে বাংলাদেশের সিলেট থেকে ইউরোপের পথে শুরু হয়েছিল তার এই বিপদজনক যাত্রা।

তিনি বলেন, ছয় মাস আগে তাদের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে তারা যান দুবাই। সঙ্গে ছিল আরও দুজন। দুবাই থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। সেখান থেকে আরেকটি ফ্লাইটে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপলিতে।সেখানে আরও প্রায় ৮০ জন বাংলাদেশী তাদের সঙ্গে যোগ দেন। এরপর পশ্চিম লিবিয়ার কোন একটা জায়গায় একটি রুমে তাদের তিন মাস আটকে রাখা হয়।

বিলাল বলেন, তার মনে হয়েছিল, তিনি লিবিয়াতেই মারা যাবেন। দিনে মাত্র একবার খাবার দেয়া হতো। অনেক সময় তারও কম। আশি জন মানুষের জন্য সেখানে টয়লেট ছিল একটি। শৌচকর্ম পর্যন্ত করতে পারতেন  না তারা।  খাবারের জন্য কান্নাকাটি করতে হতো।

তিনি বলেন, ভূমধ্যসাগরে তার চোখের সামনেই একে একে ডুবে যাচ্ছিল অনেক সহযাত্রী। তিনি নিজেও ঠান্ডা পানিতে ডুবে মারার উপক্রম হয়েছিল।বেঁচে থাকার সব আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন। তারপর আল্লাহ যেন তাকে বাঁচাতে জেলে নৌকা পাঠালেন।তারপর একদল জেলে এসে উদ্ধার করলো তাকে।জেলেরা মোট ১৬ জনকে উদ্ধার করেন, যাদের ১৪ জন বাংলাদেশী। বাকী দুজনের একজন মরোক্কোর, একজন মিশরের।

আহমেদ বিলালের সঙ্গে ঐ একই নৌকায় ছিলেন একজন মিশরীয় নাগরিক মনজুর মোহাম্মদ মেতওয়েলা। তিনি জানান, এই ছোট নৌকাটি ডুবে যেতে শুরু করে। তারা সারারাত ধরে সাঁতার কেটে ভেসে থাকেন।

বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা বলছেন, তাদের সহযাত্রীদের সবাই ছিলেন পুরুষ। এর মধ্যে ৫১ জন ছিলেন বাংলাদেশের। তিন জন মিশরের। মরক্কো, শাদ এবং আরও কয়েকটি আফ্রিকান দেশেরও কয়েকজন ছিলেন।

আর করিম চৌধুরী/এস জি নবী


নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

newssbna-ad

The Village Restaurant And Party Centre Finlay house ,Ground floor (oposite CGO building 11) Agrabad C/A Or Call 0176588888

ওয়েব সাইটে প্রকাশিত কোন প্রবন্ধ, নিবন্ধ ও মতামত এর জন্য সম্পাদক কোন ভাবে দায়ী নন